উক্তিশুভেচ্ছা বার্তাস্ট্যাটাস

ইগো নিয়ে উক্তি, ফেসবুক স্ট্যাটাস ও ক্যাপশন

আজকে আমরা কথা বলবো ইগো নিয়ে উক্তি বাণী ক্যাপশন ও কবিতা নিয়ে। অনেকেই আছেন যারা ইগো নিয়ে উক্তি বাণী ক্যাপশন ও কবিতা পাওয়ার জন্য ইন্টারনেটে অনুসন্ধান করে থাকেন। তাদের জন্য আজকের পোস্টে ইগো নিয়ে সেরা কিছু উক্তি বাণী ক্যাপশন ও কবিতা দেওয়া হয়েছে।

সবার আগে ইগো নিয়ে উক্তি বাণী ক্যাপশন ও কবিতা সংগ্রহ করার জন্য আজকের পোষ্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আশা করি আপনাদের সবার ভাল লাগবে।

ইগো নিয়ে উক্তি ও বাণী

ইগো নিয়ে উক্তি অনুশোচনা নিজের ভুল স্বীকার করা সম্পর্কিত ও বাণী। আপনারা যারা ইগো নিয়ে উক্তি ও বাণী এখনও খুজে পাননি। আপনারা এখান থেকে খুব সহজেই ইগো নিয়ে উক্তি ও বাণী খুজে পাবেন। আমরা আজকের পোস্টে ইগো নিয়ে সেরা উক্তি ও বাণী উল্লেখ করেছি। তাই এখান থেকে খুজে নিন ইগো নিয়ে উক্তি ও বাণী –

০১. “ইগো যদি কারও বাহন হয়, তবে সে কোথাও পৌঁছতে পারবে না”

– রবার্ট হ্যাল্‌ফ (আমেরিকান উদ্যোক্তা)

০২. “ইগো হল বোকাদের বোকা হওয়ার যন্ত্রণা লুকানোর উপায়”

– ড. হারবার্ট স্কোফিল্ড (১৯ শতকের ইংলিশ স্কলার ও শিক্ষক)

০৩. “তুমি যখন তোমার ইগোকে চিনতে পারবে, তখন বুঝবে এটা আসলে তোমার মনের ভেতরে সৃষ্টি হওয়া কিছু অর্থহীন কথা”

– ইকহার্ট টলি (কানাডিয়ান বেস্ট সেলিং লেখক)

০৪. “ইগো মানুষকে অচেতন করে রাখে। চেতনা আর ইগো কখনও একসাথে থাকতে পারে না”

– ইকহার্ড টলি

ইগো নিয়ে উক্তি

০৫. “ইগো মানুষের নিজেকে নিজে নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতাকে নি:শব্দে নষ্ট করে ফেলে”

– কলিন হাইটাওয়ার (আমেরিকান লেখক)

০৬. “ইগো মানুষের সুবুদ্ধির পথে অন্যতম বাধা”

– মারিয়ান মুর (আমেরিকান কবি)

০৭. “সত্যিকার বড় হতে চাইলে ইগোকে বন্দী করে রাখো…”

– মেরি রবার্টস রিনহার্ট (বিখ্যাত লেখিকা)

০৮. “ইগোইস্ট মানে এমন একজন মানুষ যে অন্য সবাইকে ছোট করে দেখে”

– জোসেফ ফোর্ট নিউটন (ধর্মীয় নেতা ও লেখক)

০৯. “একজন মানুষের ইগো ভাঙার মূহুর্তের চেয়ে ভালো মূহুর্ত আর একটিও নেই”

– ববি ফিশার (সর্বকালের সেরা দাবা খেলোয়াড়)

১০. “ইগোর মৃত্যু মানে আত্মার জাগরণ”

– মহাত্মা গান্ধী

ইগো নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস

অনেকেই ফেসবুক এ স্ট্যাটাস দিতে ভালবাসে। আপনারা যারা ইগো নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস ইন্টারনেটে খুঁজছেন। আজকের পোষ্টটি তাদের জন্য। আমরা আজকের পোস্টে ইগো নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস তুলে ধরেছি। তাই আপনারা নিচ থেকে সংগ্রহ করে নিন ইগো নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস –

১১. “ইগো হলো চোখে জমে থাকা ধুলোর মত। চোখের ধুলো পরিস্কার না হলে যেমন কিছু দেখা যায় না; তেমনি ইগো দূর না হলে সত্যিকার জগতকে দেখা যায় না”

– সংগৃহীত

১২. “ইগো সত্যিকার জ্ঞানী হওয়ার পথে একটি প্রধান বাধা”

– ড্যানিয়েল লা-পোর্ত (কানাডিয়ান বেস্ট সেলিং লেখিকা)

১৩. “যাদের ইগো বড়, তাদের জানার ক্ষমতা ছোট”

– রবার্ট স্কুলার (আমেরিকান ধর্মীয় বক্তা ও লেখক)

১৪. “বড় চিন্তা সব সময়ে হৃদয় থেকে আসে, ইগো থেকে এটা আসা সম্ভব নয়”

– সংগৃহীত

১৫. “তোমার ইগো কখনওই সত্যিকার তোমাকে ধারণ করে না। এটা একটা মুখোশ, একটা অভিনয়। এটা সব সময়ে অন্যের প্রশংসার ওপর নির্ভর করে। এটা সব নিজেকে শক্তিশালী ভাবতে চায় – কারণ সে সব সময়ে পরাজয়ের ভয় করে”

– রাম দাস (ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট ও লেখক)

১৬. “ইগোহীন আত্মবিশ্বাসই সত্যিকার আত্মবিশ্বাস। আত্মবিশ্বাসের সাথে ইগো মিশে থাকলে, তা কখনওই খাঁটি আত্মবিশ্বাস নয়”

– সংগৃহীত

ইগো নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস

১৭. “অন্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা ইগোর সবচেয়ে বড় একটি অস্ত্র। এটা না হলে সে নিজেকে শক্তিশালী করতে পারে না”

– ইকহার্ট টলি (কানাডিয়ান লেখক)

১৮. “যার জ্ঞান যত বেশি, তার ইগো তত কম। জ্ঞান কম, মানে ইগো বেশি”

– আলবার্ট আইনস্টাইন

১৯. “প্রতিভাকে খুন করা হল ইগোর সবচেয়ে বড় শক্তি”

– সংগৃহীত

২০. “যে কোনও বড় অর্জনের পথে ইগো হল সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা”

– রিচার্ড রোস (কবি ও দার্শনিক)

ইগো নিয়ে ক্যাপশন

ইগো নিয়ে ক্যাপশন। যারা ইগো নিয়ে ক্যাপশন পেতে চান বা ফেসবুক এ ইগো নিয়ে ক্যাপশন দেওয়ার জন্য খুজেন। তাদের জন্য আমরা এখানে বাছাই করা ইগো নিয়ে ক্যাপশন দিয়েছি। আশা করি আপনাদের সবার ভাল লাগবে। তাই এখান থেকে সংগ্রহ করে নিন ইগো নিয়ে ক্যাপশন –

২১. “পৃথিবীর যাবতীয় বিবাদ, যুদ্ধ আর ব্যর্থতার জন্য যদি মাত্র একটি জিনিসকে দায়ী করা হয় – তা হবে মানুষের ইগো”

– সংগৃহীত

২২. “ভালোবাসা অন্যকে কিছু দিতে পেরে সুখী হয়। ইগো ছিনিয়ে নিয়ে সুখী হয়”

– রাজনীশ (ভারতীয় দার্শনিক)

২৩. “ওপরে ওঠার সময়ে ইগো মানুষকে কুকুরের মত অনুসরন করে”

– ফ্রেডরিচ নিডসে (জার্মান দার্শনিক )

২৪. “ভুল বোঝাবুঝি দূর করার প্রথম শর্ত হল ইগোকে হত্যা করা”

– সংগৃহীত

২৫. “নিজের শুণ্যতাকে ঢাকার সবচেয়ে বাজে ও অকার্যকর ঢাল হল ইগো”

– সংগৃহীত

২৬. “কেউ তোমার ভুল ধরিয়ে দিলে যদি তুমি অপমান বোধ কর, তোমার মাঝে ইগো সমস্যা আছে”

– নোমান আলী খান (আমেরিকান ইসলামিক স্কলার)

২৭. “ইগো অন্যের কাছে বড় হওয়ার নিরন্তর চেষ্টা ছাড়া আর কিছুই নয়”

– অ্যালান ওয়াটস্‌ (বৃটিশ দার্শনিক)

২৮. “ইগো তোমার সবচেয়ে বড় শত্রু। সে সব সময়ে তোমাকে থামিয়ে রাখতে চাইবে”

– ফ্র্যাঙ্ক কার্লটন (আমেরিকান গায়ক ও লেখক)

২৯. “তুমি যখন বিচক্ষণ হতে থাকবে, তখন ইগোও জানালা দিয়ে পালাতে শুরু করবে”

– বিলি ওশান (ত্রিনিদাদিয়ান শিল্পী)

৩০. “যারা ভাবে যে তারা সবার চেয়ে বেশি জানে, তারা সত্যিকার জ্ঞানীদের কাছে বিরক্তিকর”

– আইজ্যাক আসিমভ্ (বিশ্বখ্যাত লেখক)

ইগো নিয়ে কবিতা

আপনারা অনেকেই কবিতা পড়তে খুব ভালবাসেন। আবার অনেকেই ইগো নিয়ে কবিতা ফেসবুক বা অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করার জন্য ইন্টারনেটে অনুসন্ধান করে থাকে। তাই এখানে কবিতা প্রেমিদের জন্য জন প্রিয় কিছু ইগো নিয়ে কবিতা দেওয়া হয়েছে। আশা করি সবার খুব ভাল লাগবে ।

ইগো
মোঃ অলিউল্লাহ

অনিয়ন্ত্রিত ইগো আমায় করছে নিয়ন্ত্রণ,
কখনো অভিমান, কখনো ঝগড়া, কখনো ভাঙছে মন।
ইগোর তাড়নায়, বলে যা’চ্ছে তাই প্রিয়জনের কাছে- অপ্রিয় আমি
কখনো ব্রেকাপ, কখনো আড়ি, কখনো আবার ছাড়াছাড়ি, করছি কতনা পাগলামি।

সন্দেহ আর ভুল বুঝাবুঝি,
আপোষহীন হয়ে দোষ খোঁজাখোঁজি।
হার না মানার লড়াইয়ে উভয়ে মাতোয়ারা
কেহ ভুলে যায়, কেহ পাল্টায়, কেহ হয় ঘরছাড়া।

আপনার কথা সত্য সদা, অযৌক্তিক অপরের বাণী
আপনি যাহা ভাল বলে জানি, তাহাই সদা মানি।
কেউ যদি বলে, ‘যাচ্ছো ভুলে তোমারও হতে পারে ভুল’
অসম্ভব কথা, মানবো না তা, ছাড়বোনা একচুল।

ইগো আমার দ্বিগুণ করলো জেদ,
ভাল-মন্দ, গন্ধ-সুবাসে করলো ভেদাভেদ।
কটু কথায় বোধ করি আমি বড্ড অপমান
ইগোর কারণে সেই দোষখানি বাড়লো পাহাড় সমান।

যা-ই করেছি ঠিক করেছি, অন্যায় সব তার
কি ঠ্যাকা পড়েছে, ভাঙ্গাবো ভুল আমিই বারবার।
অভিমানে বলি, সম্পর্ক টেকানোর সকল দায় কি আমার?
বলবোনা আর ফিরে আসো তুমি, ভালবাসি বলে কাছে আসবার নেই কোন দরকার।

সুপারসনিক ইগো
– গালিব আফসারী

প্রিয় অনু,
ঘুমোওনি নিশ্চয়ই?
আমি জানি, আমাকে নিশ্চুপতার কাছে বসিয়ে একা একা ঘুমুতে পারোনা তুমি,

অথচ এই আমিই চাই তুমি ঘুমিয়ে পড়ো, আমার আগেই। আমার জন্য অপেক্ষা না করে খোপার চুলগুলো খুলে বালিশে মাথা রেখে ঘুমিয়ে পড়ো, চোখের নীচে জমে থাকা ঘুমগুলো একে একে কোহেকাফের নীলচে আলোয় মিলে যাক, সরীসৃপের কষ্ট আঁকা গোপন রাত্রিতে তুমি ঘুমিয়ে পড়ো,

ঘুমুতে গিয়ে দেখো ম্যানগ্রোভ রহস্যের অদূরেই বিশাল জাদুঘর, গাছের সঙে হেলান দিয়ে কবিতা পড়ছে অনেকদিন আগের বালকপুরুষ। বালকের হাতে মিশিমিশি আফ্রিকার ঘুম, সেই ঘুমগুলো কার গো, কার?
সেই ঘনান্ধকার আমাজনে সাহস করে একবার ঢুকে পড়ে ঘুমগুলো ছিনিয়ে এনো নতুবা বালকপুরুষে হেলান দিয়ে ঘুমিয়ে পড়ো। আর কোনওদিন ফিরে আসো না আসো, বালক স্বস্তি পাক। বালক কিংবদন্তী হয়ে যাক।

অতঃপর স্বপ্ন সবুজ আঁকা বনভূমি পেরিয়ে তুমি ঘুমিয়ে পড়ো,
সিঁথিকাটা চুল এলোমেলো হয়ে যাক, সুডৌল নাকের নীচে গোলাপি ঠোটদুটো সযতনে তুলে রাখুক চুমুর পাহাড়,
আমাকে ভীষণ রকম অবহেলা করে কাটানো রোদ্দুর, কৃষ্ণচূড়ার রাস্তাওয়ালা দিন এসব তোমারই থাকুক ,
তুমি ঘুমিয়ে পড়ো, হাতে আধো ধরে রাখা রুদ্রর কবিতার বইখানি এলিয়ে পড়ুক নরম বিছানায়,

প্রিয় অনু,
মহাজাগতিক চাঁদের সাথে অভিমান ঝরা সৌন্দর্য নিয়ে
তুমি আজকাল এত রাত জাগো কেনো? জীবনের সফেদ দেয়াল পেড়িয়ে গিয়ে অপারেই একটা ঘুমের পাহাড়, ডিঙোতে হবে বলে বারেবারে হাতরাতে থাকি তুলোর আস্তরণ, তুমি না ঘুমুলে ওপারে কিভাবে যাই অনু? আমাকে নিস্তব্ধতার কাছে বসিয়ে সুপারসনিক ভালোবাসা ভর করে পায়ে পায়ে, নিস্তরঙ্গ ভালোবাসা

অনু, আমার অনু, দীঘল রাতের মায়ামৃগ,
অন্ধকার এখন খুব প্রিয় আমার, তুমি অন্ধকার তুলে রেখো বুকের গাঢ় ভাজে,
অন্ধকার খুলে রেখো নরম ঠোটের খাঁজে।
আমি অন্ধকারে আসি,
অন্ধকারে বসি,
শুয়ে পড়ি নিদারুণ অবহেলায়, তোমার অবহেলায়।
ভালোবাসার সলতেয় আগুন ধরিয়ে আলোকিত করি এই রাত্রি, তাই কোহেকাফের অন্ধকার পাহাড়ে, তুলোর পাহাড়ে রাখি হাত, হাত এগিয়ে যায়, উপরে ওঠে, উঠতে উঠতে একসময় দগ্ধ ফণায়নে সলতে নিভিয়ে দেয়, আমি অন্ধকার ভালোবাসি, অন্ধকারে ভালোবাসি, দীঘল রাতের মায়ামৃগ, আমার অনু
ইতিহাস লুকিয়ে রাখা রাইকিশোরীর রাতে, ফুটফুটে অন্ধকারে অপেক্ষা করতে হবে আমায়, রাতগুলোকে বিসর্জন দিতে হবে, সুপারসনিক ইগো এখন অপেক্ষায়, ভালোবাসার অনু,

“ইগো প্রবলেম” কি? সমাধান কি?

ইগোর অনেকগুলো প্রচলিত সংজ্ঞা আছে, তবে রায়ান হলিডের মতে ইগো হচ্ছে “নিজের বড়ত্বের প্রতি একটি অস্বাভাবিক বিশ্বাস। যার সাথে মিশে থাকে অতি অহঙ্কার এবং আত্মকেন্দ্রিক ও স্বার্থপর উচ্চাকাঙ্খা।”

নিজের প্রতি অস্বাভাবিক ও অবাস্তব উঁচু ধারনা একজন মানুষের সাফল্যের যাত্রাকে পুরোপুরি থামিয়ে দিতে পারে। ইগো আসলে মানুষের মাঝে বাস করা ছোট্ট শয়তানের মত যে একজন মানুষ আসলে যতটা বড়, তাকে তারচেয়েও অনেক বড় হিসেবে ভাবতে শেখায়।

সমাধানঃ

১/ বিনীত থাকা: যে কোনও কাজ শুরু করার আগে ভেবে নিন আপনি নিজেকে যতটা ভাবছেন ততটা গুরুত্বপূর্ণ আপনি নন। আগে সফল হোন, তারপর নিজের গুরুত্ব নিয়ে চিন্তা করুন।
২/ জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা মাথায় রাখা: কোনও কাজ শুরুর আগে সব সময়ে মাথায় রাখুন আপনি আসলে সেই কাজের বিষয়ে কতটা জানেন। একটি বিষয় মনে গেঁথে নিন, কোনও বিষয়েই জানার কোনও শেষ নেই, এবং আপনি এই কাজটির বিষয়েও সবকিছু জানেন না। কাজেই আপনার এই কাজ থেকেও নতুন অনেক কিছু শেখার আছে।শুধু নিজের সাফল্যে খুশি হওয়ার ক্ষেত্রের কথাই লেখক এই অধ্যায়ে বলেন নি।
৩/কথা কম বলে কাজ শুরু করে দেয়া। ইগো সম্পন্ন মানুষরা নিজের বড়ত্বের ব্যাপারে কথা বলতে বেশি ভালবাসে। ভবিষ্যতে তারা কি করবে, না করবে, কত বড় বড় কাজ করবে – এইসব কথা বলে বেড়ায়, কিন্তু তেমন কোনও কাজ আসলে করে না।

শেষ কথা

আমি চেষ্টা করেছি আজকের পোস্ট এর সাহায্যে সবাইকে ইগো নিয়ে উক্তি বাণী ফেসবুকে স্ট্যাটাস ও কবিতা পেতে সাহায্য করতে। আজকের পর যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই সবার সাথে শেয়ার করবেন। এবং আরো নতুন নতুন বিভিন্ন বিষয় নিয়ে উক্তি বাণী ও ফেসবুক স্ট্যাটাস পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন। এতক্ষন কষ্ট করে পোষ্টটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

আরও দেখুনঃ 

আশা নিয়ে উক্তি, ফেসবুক স্ট্যাটাস ও ক্যাপশন

ফেসবুক ফটো ক্যাপশন বাংলা [ Facebook photo caption Bangla ]

বঙ্গবন্ধু উক্তি ও কবিতা

সুন্দর ফেসবুক স্ট্যাটাস

১০০০+ ফেসবুক স্ট্যাটাস সংগ্রহ

Tech Tips

টিপস নেট বিডি সকল ধরনের প্রয়োজনীয় বিষয় নিয়ে কাজ করে। বিভিন্ন ধরনের শিক্ষামূলক, কৃষি, প্রযুক্তি, বিনোদনমূলক, কুইজ প্রতিযোগিতা, পরীক্ষার রেজাল্ট। সকল ধরনের তথ্য দিয়ে আমরা সাহায্য করে থাকি। নতুন তথ্য পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button