৭ম শ্রেণি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান

৭ম শ্রেণি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৭ম শ্রেণি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২। আজকে আমরা কথা বলবো ৭ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২ নিয়ে। বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা থেকে স্কুলের শিক্ষার্থীরা ষষ্ঠ শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২ জানার জন্য ইন্টারনেটে অনুসন্ধান করছে।

কারণ এবছর করোনার কারণে হাই স্কুলের শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। যার জন্য শিক্ষার্থীদের তাদের ৭ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে হবে। ৭ম  শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট ICT উওর পিডিএফ ডাউনলোড করুন।

প্রিয় ছাত্র ও ছাত্রী বন্ধুরা, কেমন আছেন সবাই? আসা করি সবাই ভালো আছেন। বরাবরের মতো, প্রতি সপ্তাহে আপনার জন্য ৬ষ্ঠ,৭ম,৮ম,৯ম ও ১০ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশের পরে, আমরা অবিলম্বে ষষ্ঠ,৭ম, অষ্টম, নবম শ্রেণির উত্তর ২০২২ দিচ্ছি।

আজকের পোস্টে, আমি তোমাদের ষষ্ঠ,৭ম,৮ম,৯ম শ্রেণির একাদশ-১১তম সপ্তাহের এসাইনমেন্ট প্রশ্ন ও উত্তর শেয়ার করে থাকি। ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম ও ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত এ্যাসাইনমেন্ট একাদশ-১১তম সপ্তাহের জন্য এ্যাসাইনমেন্ট। 11th week assignment 2021, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি একাদশ সপ্তাহের এসাইনমেন্ট উত্তর।

৭ম শ্রেণি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২

Covid-19 মহামারীর কারণে এবছরের  জুলাই মাসের শেষের চলমান নির্ধারিত কাজ (এসাইনমেন্ট) কার্যক্রম স্থগিত করা হয় এবং পরবর্তীতে অগাস্ট মাসের ১১ তারিখে পূণরায় এ্যাসাইনমেন্টের কার্যক্রম শুরু করা হয়।

২০২২ শিক্ষাবর্ষে শিক্ষার্থীদের মধ্যে পড়াশোনার ধারা বজায় রাখার জন্য পূণরায় ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৮ম ও ৯ম শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ের উপর এসাইনমেন্ট গ্রহন করার প্রক্রিয়া চলতে থাকবে।

৭ম শ্রেণি অ্যাসাইনমেন্ট তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ২০২২

বর্তমানে বেশিরভাগ শিক্ষার্থী ৭ম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট লিখে অনুসন্ধান করছে। তারা যেন খুব সহজেই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর এর ৭ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সমাধান খুঁজে পায়। তার জন্য আজকে আমাদের এই পোস্টে ৭ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর এবং প্রশ্ন সকল তথ্য দেওয়া হয়েছে।

আপনারা এখান থেকে খুব সহজেই ৭ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট প্রশ্নের সমাধান পেয়ে যাবেন। ১১ সপ্তাহের ৭ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান পাবেন নিচের অংশে।

৭ম শ্রেণি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

দেখুন এখানে ৭ম শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উওর। খুব সহজেই ডাউনলোড করুন ৭ম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উত্তর। নিচে থেকে দেখে নিন ৭ম শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি। ৭ম শ্রেণির এসাইনমেন্ট উত্তর দেওয়া হয়েছে।

সকল প্রশ্নের উত্তর পাবেন, তাই দেখে নিন ৭ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রশ্ন উত্তর। ৭ম শ্রেণির এসাইনমেন্ট সকল বিষয়ের উত্তর দেখুন। সবার সাথে শেয়ার করুন ৭ম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট ICT উওর। সাথে দেওয়া হয়েছে ৭ম শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় সমাধান। ৭ম শ্রেণীর ১১ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট দেখুন আমাদের পোস্টে।

class 7 ict

১৭ তম সপ্তাহের ৬ষ্ঠ, ৭ম, ৮ম ও ৯ম শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান দেখুন

৯ম শ্রেণীর গণিত এসাইনমেন্ট সমাধান, সপ্তম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট গার্হস্থ্য বিজ্ঞান, নবম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট গণিত। নবম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট ও অষ্টম শ্রেণির এসাইনমেন্ট দেখুন। সপ্তম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট কৃষি শিক্ষা সমাধান ২০২২নবম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট ইংরেজি উত্তর ও ৯ম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট।

নবম শ্রেণী চারু ও কারুকলা অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

নবম শ্রেণী অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

নবম শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

নবম শ্রেণি কৃষি শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

নবম শ্রেণির উচ্চতর গণিত অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৯ম শ্রেণি গণিত অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৬ষ্ঠ শ্রেণীর গণিত অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৬ষ্ঠ শ্রেণীর কৃষি শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৬ষ্ঠ শ্রেণির গার্হস্থ্য বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৭ম শ্রেণীর গণিত অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

সপ্তম শ্রেণির কৃষি শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৭ম শ্রেণি গার্হস্থ্য বিজ্ঞান এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৮ম শ্রেণীর গণিত অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ‌২০২২

৮ম শ্রেণির কৃষি শিক্ষা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৮ম শ্রেণী গার্হস্থ্য বিজ্ঞান অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৭ম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট ICT উত্তর

অ্যাসাইনমেন্ট পেপার এ উল্লেখিত নির্দেশনা ও মূল্যায়ন রুবিক্স সমূহ যথাযথভাবে অনুসরণ করে শিক্ষার্থীদের জন্য একটি নমুনা উত্তর প্রস্তুত করে দেওয়া হল।

ব্যক্তি, কর্ম ও সমাজ জীবনের উল্লেখযােগ্য ক্ষেত্রে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির ভূমিকা

আধুনিক সভ্যতার ক্রমবিকাশে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির প্রভাব অপরিসীম। টেকসই উন্নয়ন, দারিদ্র্ বিমােচন,কর্মসংস্থান সৃষ্টি সর্বোপরি মানুষের জীবন যাত্রার মান উন্নয়নে তথ্য ও যাগাযােগ প্রযুক্তির সরাসরি প্রভাব লক্ষ্যণীয়। আইসিটির উন্নয়ন মানব সমাজের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রকে পরিবর্তিত করেছে এবং বিভিন্নভাবে আমাদের জীবন যাত্রাকে প্রভাবিত করছে।

সমাজ জীবনে আইসিটির প্রভাব কখনাে ইতিবাচক আবার কখনাে নেতিবাচক। বর্তমান বিশ্বে আইসিটির অন্যতম প্রধান একটি সেবা হচ্ছে ইন্টারনেট। এর মাধ্যমে এখন খুব সহজেই এক স্থান থেকে অন্য স্থানে খবর পাঠানাে যায়।

ব্যন্ডউইথ, ব্রডব্যন্ড ইত্যাদির কর্মদক্ষতা ও ইন্টারনেট সংযােগের গতির প্রেক্ষিতে যে কোন তথ্য এখন মুহূর্তের মধ্যে পৃথিবীর একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে পাঠানাে সম্ভব। নিচে বিভিন্ন ক্ষেত্র গুলা বর্ণনা করা হলােঃ

ব্যক্তি জীবনে তথ্য প্রযুক্তিঃ

আধুনিক জীবনের সাথে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তি ওতপ্রাতভাবে জড়িত। প্রাচীন সভ্যতা থেকে শুরু করে আজকের এই নগর সভ্যতার দিকে তাকালে আমরা এক অভূতপূর্ব পরিবর্তন লক্ষ করতে পারি। এই যুগান্তকারী পরিবর্তন এনে দিয়েছে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তি।

সমাজের যে স্তরে এখনা বিজ্ঞানের ছোঁয়া লাগেনি সে স্তরে এখনাে উন্নতির ছোঁয়া প্রবেশ করতে পারেননি। তাই বলা যায় যে সভ্যতার উন্নয়নের মূলে রয়েছে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তি। পিটার থেইল বলেছেনঃ

“Technology just means information technology.”

সাম্প্রতিককালে তথ্য প্রযুক্তির যে বিস্ময়কর উন্নতি সাধিত হয়েছে তা প্রযুক্তি বিজ্ঞানেরই অবদান পৃথিবীতে এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না, যে কোন না কোনভাবে প্রযুক্তি ব্যবহার করেনি। তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তি সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে রাষ্ট্রের বড় বড় কাজে ব্যবহার হচ্ছে।

ঘুমাতে যাওয়া থেকে শুরু করে ঘুম থেকে জেগে উঠা পর্যন্ত প্রতিটি মূহর্তে আমারা প্রযুক্তির ব্যাবহার করে আসছি। ব্যক্তিগত জীবনে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তির ব্যবহারের ক্ষেত্রসমূহ হলঃ

  • ব্যক্তিগত যােগাযােগ
  • বিনােদন
  • জিপিএস (GPS: Global Positioning System)
  • কম্পিউটার ব্যবহার করে গান শােনা
  • ই-বুক ব্যবহার করে বই পড়া।
  • কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে যােগাযােগ
  • মােবাইল ফোনের মাধ্যমে ঘরে বসেই পরীক্ষার ফলাফল জানা যায়।
  • মােবাইল ফোন ব্যবহার করে টাকা পাঠানাে এবং গ্রহণ করা যায়।
  • অনলাইন এবং ইন্টারনেট ব্যবহারে ঘরে বসেই চাকরির দরখাস্ত করা যায় এবং পরীক্ষার প্রবেশপত্র অনলাইন থেকে প্রিন্ট করা যায়।
  • অনলাইন টিকিটিং সিস্টেমের মাধ্যমে ঘরের বাইরে বা স্টেশনে না গিয়েই ট্রেন ও প্লেনের টিকিট কেনা যায়।
  • ইন্টারনেটে ঘরে বসেই প্রয়ােজনীয় পণ্যের অর্ডার দেওয়া এবং বিল পরিশােধ করা যায়।

কম্পিউটার-নির্ভর ইন্টারনেট প্রযুক্তি উদ্ভাবনের ফলে সমগ্র বিশ্বটিই এখন এক বিশাল তথ্যভান্ডারে পরিণত হয়েছে। সম্প্রতি কোভিড-১৯ এর কারনে প্রযুক্তির ব্যাবহার অনেক গুরুত্ব পেয়েছে। মহামারি পরিস্থিতে মানুষ গৃহবন্দি থাকলেও যােগাযােগ থেমে ছিল না।

ইন্টারনেট প্রযুক্তি ব্যাবহার করে একে অন্নের খবর নিতে পরেছে, অন্যদেশের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে পেরেছে, সামাজিক যােগাযােগের মাধ্যমে সাধারণ মানুষদের কোভিড-১৯ এর সম্পর্কে সচেতন করেছে এবং এর থেকে বাঁচার উপায় সম্পর্কে জানিয়েছে। তাছাড়া অসহায় দুঃস্থ মানুষদের আর্থিক সহায়তার জন্য বিভিন্ন অনলাইন ভিত্তিক সংস্থা কে অনুদান দিয়ে সহায়তা করা। সম্ভব হয়েছে। যােগাযােগ প্রযুক্তির উন্নতির কারণে বাসা থেকে অনলাইনে পাঠদান সম্ভব হয়েছে।

ব্যক্তি কর্ম ও সমাজ জীবনের উল্লেখযোগ্য ক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তির ভূমিকা

সম্প্রতি কোভিড-১৯ এর কারনে প্রযুক্তির ব্যাবহার অনেক গুরুত্ব পেয়েছে। মহামারি পরিস্থিতে মানুষ গৃহবন্দি থাকলেও যােগাযােগ থেমে ছিল না। ইন্টারনেট প্রযুক্তি ব্যাবহার করে একে অন্নের খবর নিতে পরেছে, অন্যদেশের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে পেরেছে, সামাজিক যােগাযােগের মাধ্যমে সাধারণ মানুষদের কোভিড-১৯ এর সম্পর্কে সচেতন করেছে এবং এর থেকে বাঁচার উপায় সম্পর্কে জানিয়েছে।

তাছাড়া অসহায় দুঃস্থ মানুষদের আর্থিক সহায়তার জন্য বিভিন্ন অনলাইন ভিত্তিক সংস্থা কে অনুদান দিয়ে সহায়তা করা সম্ভব হয়েছে। যােগাযােগ প্রযুক্তির উন্নতির কারণে বাসা থেকে অনলাইনে পাঠদান সম্ভব হয়েছে।

কালের বিবর্তনে মানব জীবন এবং তথ্য ও প্রযুক্তি একে অপরের সঙ্গে ওতপ্রােতভাবে জড়িয়ে গেছে দৈনন্দিন জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত্তে তথ্য ও যোগাযােগ এর অবদান রয়েছে মানব জীবনে বিজ্ঞানের এ ব্যবহারকে ইতিবাচক দিকে রাখতে হবে তথ্য ও প্রযুক্তির আলােয় প্রতিটি মানুষকে আলােকিত করতে হবে সমস্ত কলুষতা থেকে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তিতিকে মুক্ত করার জন্য সকল ধরনের অপব্যবহার থেকে তথ্য কে সরিয়ে রাখতে হবে তবেই মানবসভ্যতা যথার্থ উন্নয়ন সম্ভব।

সমাজ জীবনে তথ্য প্রযুক্তিঃ

আবার ইন্টারনেট ব্যবহার করলে যােগাযােগ খরচ অন্যান্য যােগাযােগ মাধ্যম যেমন- টেলিফোন, কুরিয়ার সার্ভিস এগুলাের তুলনায় অনেক কম হয়। ইন্টারনেটের মাধ্যমে মানুষ অনেক বেশি তথ্য সেবা পেতে পারে। কারণ, ইন্টারনেটের সংযােগ খরচ তুলনামূলক ভাবে অনেক কম। এভাবেই আইসিটি যােগাযােগ ব্যবস্থার উন্নতি সাধন করছে।

আইসিটির অগ্রগতি ফলে দিন দিন কাগজের ব্যবহার হ্রাস পাচ্ছে। আইসিটির প্রভাবে শিক্ষা ব্যবস্থাও অনেক পরিবর্তন হয়েছে। দূরশীক্ষণ, অনলাইন টিউটোরিয়াল ইত্যাদির মাধ্যমে এখন ঘরে বসেই লেখাপড়া করা সম্ভব হচ্ছে।

আইসিটি উন্নয়নের ফলে কর্মক্ষেত্রেও অনেক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। যেমন- আইসিটি কল্যাণে বিভিন্ন শিল্প কারখানায় রােবােট ব্যবহার করে ২৪ঘন্টা কার্য পরিচালনা সম্ভব হচ্ছে যা কখনােই একজন মানুষকে দ্বারা সম্ভব নয়। আবার অনেক কাজ কর্মক্ষেত্রে না গিয়ে ও ঘরে বসে ইন্টারনেটের মাধ্যমে করা যাচ্ছে। এর ফলে আসা যাওয়ার সময় ও খরচ বাঁচানাে যাচ্ছে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে মিডিয়া ও প্রযুক্তির মূল ব্যবহারকারী হচ্ছে এদেশের তরুণ সমাজ।

এটা অবশ্যই অনেক ভালাে দিক যে, আমাদের দেশের তরুণ- তরুণীরা বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলছে। কিন্তু কথা হচ্ছে, মিডিয়া ও প্রযুক্তির ব্যবহারে আমাদের তরুণ তরুণীরা কতােটুকু সচেতন? আমি একটা কথাই বলতে চাই, শিক্ষিত ও সচেতন তরুণ সমাজ অবশ্যই মিডিয়া ও প্রযুক্তির সুফল ভােগ করছে।

শুধুমাত্র মিডিয়া ও প্রযুক্তিতিকে ব্যবহার করেই আমাদের শিক্ষিত তরুণ সমাজ গড়ে তুলেছে এক বিশাল কর্মক্ষেত্র। কিন্তু বর্তমান শহরে জীবন হতে শুরু করে গ্রামের অর্ধশিক্ষিত এবং অশিক্ষিত তরুণরাও খুব সহজে পেয়ে যাচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির ছােয়া।

ব্যক্তি কর্ম ও সমাজ জীবনের উল্লেখযোগ্য ক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তির ভূমিকা

কিন্তু তাদের মধ্যে অনেকেরই সচেতনতা নেই। সে কারণে মিডিয়া ও প্রযুক্তির অপব্যবহার হচ্ছে বেশি। বেড়ে যাচ্ছে আত্মহত্যা, খুন, অপহরণ ও ইভটিজিংসহ নানা ধরনের সামাজিক অপরাধ। আমাদের টিভি চ্যানেলগুলাে সম্পূর্ণ ব্যবসায়িক মনভাবাপন্ন। বিজ্ঞাপন মিডিয়াকে পুরাে পুরি গ্রাস করে ফেলছে। আর বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে নারী পুরুষ সকলেই পণ্যে পরিণত হচ্ছে। যেখানে সচেতনতার চেয়ে পুঁজি ও মুনাফাই প্রধান।

কিছু রাজনৈতিক নেতা ইন্টারনেট প্রযুক্তিকে ভয় পান। এতে হয়তাে জনগণের মত প্রকাশ দৃশ্যমান হয়ে পড়বে। লিবিয়ান প্রেসিডেন্ট গাদ্দাফি অন্যতম কিছু চাইনিজ ব্লগার সবার আগে ব্লগিংয়ের দ্বারা সরকারের সমালােচনা শুরু করে।

কিছু দেশের সরকার এতে বাধা তৈরি করে। এখন ভাবার সময় চলে এসেছে, কিভাবে প্রযুক্তি সমাজে প্রভাব বিস্তার করে। কিসে আমাদের জনগণ ভালাে। সব প্রযুক্তি মানব কল্যাণে তৈরি ভাবলেও তা কিছুটা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যমূলকও।

যা আমরা খােলা চোখে দেখতে পারি না। নিজস্ব সংস্কৃতি আর ইতিহাসের প্রতি সমুন্নত থাকলেই কেবল সকল প্রকার প্রযুক্তির খারাপ দিক গুলাে এড়িয়ে লাভটা আদায় করে নেওয়া সম্ভব। তবে তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তি নির্ভর করছে ব্যক্তির নিজস্ব চিন্তা ও চেতনার উপর।

কেউ ইচ্ছে করলে একে খারাপ কাজে ব্যবহার করতে পারেন, আবার ভালাে কাজেও ব্যবহার করতে পারেন। তথ্য ও যোগাযােগ প্রযুক্তি সমাজের জন্য এক বিরাট আশীর্বাদ। তাই এর নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার, দ্রুত প্রসার এবং উন্নয়ন পৃথিবীকে আরও সুন্দর এবং সমৃদ্ধ করবে।

কর্ম জীবনে তথ্য প্রযুক্তিঃ

কর্মক্ষেত্র, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং বাড়িতে তথ্য এবং যােগাযােগ প্রযুক্তি (আইসিটি) ব্যবহার সাম্প্রতিক বছরগুলিতে প্রশংসনীয়ভাবে বেড়েছে। আধুনিক আইসিটি পণ্য এখন বেশিরভাগ লােকের জন্য সহজেই উপলব্ধ।

এগুলির আইপড, মােবাইল ফোন, ব্যক্তিগত সংগঠক এবং ডিজিটাল টিভি থেকে শুরু করে স্যাটেলাইট যােগাযােগ প্রযুক্তি, ব্যক্তিগত কম্পিউটার এবং ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব পর্যন্ত রয়েছে।

তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তি যেহেতু আরও পরিশীলিত হয়ে উঠেছে এটি আরও অর্থনৈতিক এবং অ্যাক্সেসযােগ্য হয়ে উঠেছে। প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য প্রয়ােজনীয় বিশেষ দক্ষতা আর কম্পিউটিং বিশেষজ্ঞের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই।

অফ-শেল্ফ পণ্যগুলি অ-বিশেষজ্ঞদেরকে নতুন জ্ঞান এবং তথ্য নেটওয়ার্কগুলি তৈরি করার জন্য আইসিটিগুলির সুবিধা নেওয়ার সুযােগ দেয়। আমরা যেভাবে যােগাযােগ করি এবং জ্ঞান প্রার্থনা করি তা রূপান্তরিত হয়েছে।

ব্যক্তি কর্ম ও সমাজ জীবনের উল্লেখযােগ্য ক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তির ভূমিকা

মােবাইল ফোন এবং ই-মেইলের মতাে যোগাযােগের সাধারণ ফর্মগুলির মাধ্যমে লোকেরা তাতক্ষণিকভাবে অ্যাক্সেসযােগ্য। ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব জনগণের অ্যাক্সেসকে প্রচুর পরিমাণে তথ্য এবং জ্ঞানের হস্তান্তরকে এমন এক পর্যায়ে সক্ষম করে যা পূর্বে কল্পনাও করা হয়নি।

সম্প্রদায় পরিষেবা পেশাদারদের জন্য এই নতুন প্রযুক্তিটি সর্বাধিক তথ্য পুনরুদ্ধার এবং আদান-প্রদানের পাশাপাশি বৈদ্যুতিন প্রকাশের মাধ্যমে তথ্য প্রচারের ক্ষেত্রে সহায়তা করতে পারে।

এটি ব্যক্তিদের তাদের বাড়ি বা অফিস বেস থেকে বিশ্বজুড়ে অন্যান্য ব্যক্তির সাথে তাতক্ষণিকভাবে যােগাযােগ করতে সক্ষম করে। ক্যাফে এবং অন্যান্য জায়গাগুলিতে ওয়্যারলেস সংযােগ ল্যাপটপের মাধ্যমে যােগাযােগের আমাদের সুযােগগুলিও বৃদ্ধি করেছে। সুতরাং বলা যায়, সর্বক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তির ব্যাপক ব্যবহার হচ্ছে।

সর্বশেষ কথা

আশা করি আজকে আমাদের এই পোষ্টের মাধ্যমে ৭ম শ্রেণি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান জানতে পেরেছেন। তাই অবশ্যই আজকের এই ৭ম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সবার সাথে শেয়ার করবেন।

এবং পরবর্তী সপ্তাহের সকল অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন। ৭ম শ্রেণীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ৭ম এ্যাসাইনমেন্ট সমাধান দেখুন পোস্টে। ৭ম শ্রেণীর অ্যাসাইনমেন্ট বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় উওর ও ৭ম শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচয় তুলে ধরেছি।

আরও দেখুন

৯ম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

এসএসসি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৮ম শ্রেণি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

৭ম শ্রেণি বাংলা এসাইনমেন্ট সমাধান ২০২২

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *