বিজয় দিবস

বিজয় দিবস ২০২৩ | ১৬ ডিসেম্বর কি ও কেন, বক্তব্য ও পাঁচটি বাক্য

বাঙ্গালীদের স্বাধীনতার এক স্মরণীয় দিন ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস। প্রতিবছর এই দিনটি বাংলাদেশে বিশেষভাবে পালন করা হয়। পাকিস্তান পাক বাহিনী বাঙ্গালীদের নির্যাতন ও অত্যাচার মাধ্যমে থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে। ক্রমাগত নির্যাতন চালিয়ে গেছে। তারা ভেবেছিল বাঙ্গালীদের থামিয়ে তাদের নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবে। কিন্তু তাদের ধারণা ছিল ভুল দীর্ঘ ৯ মাস যু*দ্ধ হয় পাকিস্তান হানাদার বাহিনীদের সাথে।

তারা ভেবেছিল কঠোর অত্যাচার নি*র্যাতন সহ্য করতে না পেরে। তাদের হাতে বাঙালিরা আত্মসমর্পণ করবে। তারা চিন্তাও করতে পারেনি বাঙ্গালীদের সাথে যুদ্ধে হেরে যাবে। বাঙ্গালীদের ঈমানী শক্তি অনেক মজবুত যা পাকিস্তানি পাক বাহিনীর জানা ছিল না। বাঙালিরা ধৈর্যের সাথে দীর্ঘ নয় মাস যু*দ্ধ চালিয়ে যায় এবং পাকিস্তান পাক বাহিনীদের আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য করে।

বিষয়টি সহজ ছিল না তাইতো দীর্ঘদিন অত্যা*চার, নির্যাতন সহ্য করতে হয়েছে। কিন্তু কখনোই আশাহত হয়নি শহীদরা দেখিয়েছে। চেষ্টা করলে অবশ্যই সফল হওয়া যায় তবে সৎ উদ্দেশ্য হতে হবে। আমরা বিজয় দিবস সম্পর্কে অনেক কিছু নিচে তুলে ধরেছি।

আশা করা যায় ওখান থেকে আপনি জানতে পারবেন। তাই আশা করা যায় বিজয় দিবস সম্পর্কে জানার জন্য যারা আগ্রহী আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়বে। এর পাশাপাশি আমরা কিছু কবিতা দিয়েছি এবং বিজয় দিবসের ছবি দিয়েছি চাইলে এগুলো সংগ্রহ করে নিতে পারবেন।

বিজয় দিবস

১৬ই ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিজয় দিবস রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রতিবছর পালন করা হয়। তবে এর ইতিহাস সম্পর্কে অনেকেরই অজানা। যারা নিয়মিত ইন্টারনেট ব্যবহার করে এর মধ্যে অনেকেই বিজয় দিবস সম্পর্কে জানা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর এর নেতৃত্বে বাঙ্গালীদের ভাষা আন্দোলনের সাহস যোগায়। শেখ মুজিবর এর নেতৃত্বে ভাষা আন্দোলন শুরু হয় ১৯৪৮ সাল থেকে ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬৬’র ছয় দফা, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান ।

১৯৭১ এর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ যা হাজারো বাঙ্গালীদের সাহস যোগাতে সাহায্য করে। পাকিস্তানিদের কাছে ছিল আধুনিক অস্ত্রশস্ত্র এদিকে বাঙ্গালীদের কাছে পাকিস্তানের মতো আধুনিক অস্ত্র নেই। বাঙালি জাতির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং অত্যাচার শুরু করে, বাঙালিরা কখনোই পিছপা হয়নি।

এখানে দেখুনঃ বিজয় দিবসের ১৬ ডিসেম্বর শুভেচ্ছা, স্ট্যাটাস, ক্যাপশন ও উক্তি

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ মনে সাহস জাগিয়ে তুলে। এবং ছাব্বিশে মার্চ বঙ্গবন্ধু ঘোষণা দেয় স্বাধীনতার। এতে পাকবাহিনী বাঙ্গালীদের উপর আক্রমণ করে। শুরু হয় মুক্তিযু*দ্ধ এক্ষেত্রে অনেকেই প্রাণ হারায় । বঙ্গবন্ধুর ভাষণ আটকানোর জন্য পাকিস্তান পাকবাহিনী পরিকল্পনা করে বঙ্গবন্ধুকে আটক করার জন্য। পরিকল্পনা অনুযায়ী আটক করে ফেলে। কিন্তু বাঙ্গালীদের উপর চেপে বসা শাসন বেশি দিন আটকে রাখতে পারিনি।

বিজয় দিবস কি ও কেন

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনুপস্থিতিতেই তাকে রাষ্ট্রপতি করে। গঠিত বাংলাদেশের সরকারের অধীনে পরিচালিত দীর্ঘ ৯ মাসের র*ক্তক্ষ*য়ী মুক্তিযু*দ্ধে ১৬ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে পাকিস্তানি বাহিনীর প্রায় ৯১,৬৩৪ সদস্য আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করে।।

bijoy dibosh pic

এই বিজয় অর্জনে মধ্য দিয়ে বিশ্বের মানচিত্রে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের। এই স্বাধীনতা অর্জন করার জন্য ৩০ লক্ষ বাঙ্গালীদের আত্মত্যাগ। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রফিক, সালাম, বরকত, সফিউর জব্বাররা। আমরা তাদের আত্মত্যাগের কথা ভুলিনি। ৩০ লক্ষ বাঙ্গালীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা আজ কোটি কোটি মানুষ বাংলা ভাষায় কথা বলছি এবং স্বাধীনতা পেয়েছি। আমরা পাকিস্তানের অধীনে নেই এটা ভেবেই আমাদের অনেক আনন্দ। তাই বিজয় দিবস প্রতিবছর আনুষ্ঠানিকভাবে পালিত হয়।

কততম বিজয় দিবস ২০২৩

বিজয় দিবস সম্পর্কে আমরা ইতিমধ্যে অনেক কিছুই জানতে পেরেছি। বিজয় দিবস ১৬ই ২০২৩ডিসেম্বর উদযাপিত হয়। ২০২৩ সালের ১৬ ডিসেম্বর এটি হচ্ছে ৫২ তম বিজয় দিবস। বাংলাদেশের বিশেষ দিন হওয়ায় রাষ্ট্রীয়ভাবে এই দিনটি পালন করা হয়। ১৬ ডিসেম্বর ভোরে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের সূচনা ঘটে।

বিজয়ের চেয়ে আনন্দ অন্য কিছুতে নেই। স্বাধীনতার চেয়ে সুখ আর কোথায় হয় না। আর আমরা বিজয় এবং স্বাধীনতা দুটোই পেয়েছি।

আজ বিজয় দিবসে বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে আলোচনা হোক। দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হোক। এতেই তাদের পরকালীন শান্তি।

বিজয়ের প্রকৃত স্বাদ আমরা পাইনি। মানুষ হত্যার রাজনীতি চাইনি । যা চেয়েছি তার ধারেকাছেও যাইনি ।

আমি বাঙালি মুসলমান। বিজয় দিবসে প্রথমে আল্লাহর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তারপরে সকল অকুতোভয় বীর সেনাদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি। যাদের ত্যাগেই পেয়েছি এই দেশ ।

আসুন আজকের এই বিজয়ের দিনে আত্মার মাগফেরাত কামনা করি । যাদের আত্মত্যাগে আমরা পেয়েছি এই স্বাধীন দেশ ।

এখানে দেখুনঃ বিজয় দিবসের কবিতা ও উক্তি 2023 | Bijoy Dibosh Kobita & Quotes

জাতীয় প্যারেড স্কয়ারে অনুষ্ঠিত সম্মিলিত সামরিক কুচকাওয়াজে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বাংলাদেশ নৌবাহিনী এবং বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর সদস্যরা যোগ দেন। কুচকাওয়াজের অংশ হিসেবে সালাম গ্রহণ করেন দেশটির প্রধান রাষ্ট্রপতি কিংবা প্রধানমন্ত্রী। এই কুচকাওয়াজ দেখার জন্য প্রচুরসংখ্যক মানুষ জড়ো হয়। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষে অনেকেই অনেক কিছুর আয়োজন করে থাকে।

বিজয় দিবস কত সালে

দীর্ঘ ৯ মাস যু*দ্ধ করে ৩০ লক্ষ বাঙ্গালীদের র*ক্তের বিনিময়ে অর্জিত বিজয়। ২০২৩ সালের ১৬ ডিসেম্বর ৫১ তম আয়োজন হবে। এই বিজয় অর্জন করার জন্য বাঙ্গালীদের আত্মত্যাগ ইতিহাসের পাতায় রয়ে গেছে। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে নয় মাসের র*ক্তক্ষ*য়ী যুদ্ধের পর পাকিস্তানি বাহিনী এই দিনে যৌথবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়েছিল। পাকিস্তানি বাহিনীর প্রায় ৯১,৬৩৪ সদস্য আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করে। পাকিস্তান পাকবাহীদের অত্যা*চার শেষ হয়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জন হয়। তারপর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়।

mohan bijoy dibosh chobi

বিজয় দিবস উপলক্ষে বক্তব্য

খুব শীঘ্রই বিজয় দিবস উদযাপন হতে চলেছে বিজয় দিবস উপলক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে আয়োজিত হবে, বিজয় দিবস প্রতিবছর উদযাপন হয়। এটি অর্জন করার জন্য অনেক আত্মত্যাগ করতে হয়েছে শহীদদের। বিজয় অর্জন করার জন্য প্রয়োজন ছিল শক্তির উৎস। আর সেই শক্তি উৎস ছিল ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ এর ভাষণ। এই ভাষণ বাঙ্গালীদের সাহস যোগাতে সাহায্য করে। আর এ থেকে বিজয়ের ইচ্ছা শক্তি উৎস তৈরি হয়। তাই সকল বাধা বিপত্তি পার করে দীর্ঘ নয় মাস প্রাণপণ চেষ্টা করে বিজয় লাভ করে।

আজ বিজয়ের মহান দিনে, বন্ধ থাকুক কাজ। আজ আনন্দ করে যাব, দেখবো কুচকাওয়াজ।

দেশ ভক্তির কথা তো মুখে মুখে সবাই বলে কিন্তু আসল দেশপ্রেমিক তো সেই যে নিজের কর্মের দ্বারা দেশকে ভক্তি করে ।‌

তোমার মাঝে স্বপ্নের শুরু তোমার মাঝেই শেষ, তুমি আমার জন্মভূমি সোনার বাংলাদেশ ।

বক্তব্য পেতে এখানে ভিজিট করুন…..

বিজয় দিবস সম্পর্কে পাঁচটি বাক্য

বিজয় মানেই আনন্দ, বিজয় মানেই উল্লাস আর এই দিবসের শুভেচ্ছা আদান প্রদানের জন্য। বিজয়ের আয়োজনে অনেকেই বিজয় দিবসের ছবি সংগ্রহ করতে চায়। বিজয় দিবস জন্য আমরা বিজয় দিবসের ছবি তুলে ধরেছি। চাইলে এখান থেকে আপনি সংগ্রহ করে নিতে পারবেন।

১৬ই ডিসেম্বর বাঙ্গালীদের ইতিহাসের পাতায় রয়ে গেছে। ১৬ই ডিসেম্বরের আনন্দ মুহূর্ত গুলো আরো সুন্দরভাবে তুলে ধরার জন্য বিজয়ের কবিতা সমূহ অনেকেই অনুসন্ধান করে থাকে, যা আমরা এই পোস্টে তুলে ধরেছি। বিজয় দিবসের কবিতা সমূহ নিজে থেকে সংগ্রহ করে নিন।

16 december bijoy

বিজয় দিবস উপলক্ষে অনেকেই কবিতার সংগ্রহ করতে চায়। তাই আমরা এই পোস্টে বিজয় দিবস নিয়ে ভালো কবিতা তুলে ধরেছি। আশা করা যায় এই কবিতা আপনাদের কাছে ভালো লাগবে। বিজয় দিবসের কবিতা নিচে দেয়া হয়েছে নিচ থেকে সংগ্রহ করে নিন।

আরও দেখুনঃ বিজয় দিবসের ছবি, পিকচার, ফটো ও শুভেচ্ছা ছবি 2023

আশা করা যায় এই পোস্ট আপনাদের কাছে ভালো লেগেছে। যদি এই পোস্ট আপনাদের কাছে ভালো লেগে থাকে। তাহলে আপনাদের বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে পারেন। তারা বিজয় দিবস সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *